1. dailynarsingdi24@gmail.com : Daily Narsingdi 24 : Rabbi Sarker
  2. ojjalsarker@gmail.com : ডেইলি নরসিংদী ২৪ : ডেইলি নরসিংদী ২৪
     
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন




নরসিংদীর তনিমা বিশ্ব সেরা ১০ বিজ্ঞানীর একজন

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৯৩ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বের সেরা ১০ জন বিজ্ঞানীর তালিকায় নাম উঠেছে বাংলাদেশি তরুণী তনিমা তাসনিম অনন্যার। সায়েন্স নিউজ নামের একটি সংবাদমাধ্যমের এই তালিকা তৈরি করেছে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে সায়েন্স নিউজ। ষষ্ঠবারের মতো এমন বিজ্ঞানীদের এই তালিকা প্রকাশ করলো তারা।

কৃষ্ণগহ্বর নিয়ে গবেষণার জন্য ‘এসএন টেন : সায়েন্টিস্ট টু ওয়াচ’ নামের এই তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন অনন্যা। এর আগে নাসা ও সার্নে ইন্টার্নশিপ করেছেন তিনি। এছাড়া কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়েও কিছুদিন পড়াশোনা করেছেন তিনি। ২০১৯ সালে পিএইচডি সম্পন্ন করেন অনন্যা।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, তনিমা তাসনিম একজন মহাকাশবিজ্ঞানী। বর্তমানে ডার্টমাউথ কলেজের সঙ্গে তিনি যুক্ত আছেন। এক সময় ঢাকার বাসিন্দা তনিমা কৃষ্ণগহ্বরের পূর্ণাঙ্গ চিত্র এঁকেছেন। তাতে তিনি দেখিয়েছেন, কীভাবে কৃষ্ণগহ্বরগুলো বেড়ে ওঠে এবং পরিবেশে কী প্রভাব রাখে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে ব্যবহার করে এই কাজ সম্পন্ন করেছেন তিনি।

ওই ওয়েবসাইটে আরো লেখা হয়, পাঁচ বছর বয়সে ঢাকায় থাকার সময় থেকেই তনিমা তাসনিমের মধ্যে মহাকাশের স্বপ্ন বুনে দেন তার মা। তিনি মেয়েকে তখন শোনাতেন মঙ্গলে অভিযানে যাওয়া পাথফাইন্ডার মহাকাশযানের গল্প। সেই থেকেই বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহ বাড়তে থাকে তনিমার। তিনি জানান, ওই সময় থেকেই মহাকাশবিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করার স্বপ্ন দেখতেন।

তনিমা তাসনিম অনন্যা নরসিংদী বেলাবরের নারায়ণপুরের হোসেননগর গ্রামের এম এ কাইয়ুমের মেয়ে। এম এ কাইয়ুম ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি। মেয়ের এই সফলতার বিষয়ে তিনি বলেন, প্রত্যেক সন্তানের ভালো সংবাদে, তাদের অর্জনে গর্বিত হন পিতামাতা। তারাও গর্বিত। তিনি মহান আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং তার মেয়ের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়াও চান।




নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..







© All rights reserved © 2021 dailynarsingdi24.com ।
Theme Customized By BreakingNews
x
error: